বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিলো রাশিয়া, ঘোষণা পুতিনের

ছাতকবাজার ছাতকবাজার

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ৮:৫৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১১, ২০২০
নিউজ শেয়ার করুনঃ

ইতোমধ্যেই স্বয়ং নিজের কন্যা ওই ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

মঙ্গলবার রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, মানবদেহে দুই মাসেরও কম সময় পরীক্ষা চালানোর পর বিজ্ঞানভিত্তিক সুফল পেয়ে পৃথিবীর প্রথম দেশ হিসেবে নিজেদের তৈরি করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কার্যকর ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের লড়াইয়ে সবার আগে নাম লেখাতে তার দেশ সফল হয়েছে বলে জানান পুতিন।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক সরকারি সভায় রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, মস্কোর গামালেয়া ইনস্টিটিউটে উদ্ভাবিত ওই ভ্যাকসিন নিরাপদ এবং তার নিজের এক কন্যার শরীরে সেটি প্রয়োগ করা হয়েছে।

‘আমি জানি, এটি যথেষ্ট সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে, প্রবল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে, এবং আবারও বলছি, প্রয়োজনীয় সকল পরীক্ষাতেই এটি উৎরে গিয়েছে,’ বলেন পুতিন।

তার দেশ শিগগিরই ব্যাপক পরিসরে ভ্যাকসিনটির উৎপাদন শুরু করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

হাজারও মানুষের দেহে, সার্বিকভাবে ‘ফেজ থ্রি ট্রায়াল’ নামে পরিচিত এক বৃহত্তর পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনায় নিয়ে রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ওই ভ্যাকসিনের আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দিয়েছে।

এ ধরনের পরীক্ষার ক্ষেত্রে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা পরখ করতে একটি নির্দিষ্টসংখ্যক অংশগ্রহণকারীর প্রয়োজন পড়ে। আর তারপরই মেলে সেটির গণ-ব্যবহারের অনুমোদন।

বিশ্বজুড়ে বিশেষজ্ঞরা বারবার সাবধান করে দিচ্ছেন, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন দ্রুত বাজারে ছাড়ার লড়াইয়ে নেমে নিরপত্তার সঙ্গে কোনো রকম আপস করা চলবে না। তবে সাম্প্রতিক জরিপগুলোতে দেখা গেছে, এ ধরনের ভ্যাকসিন তৈরিতে সরকারগুলোর এমন যটপট কর্মপ্রচেষ্টার প্রতি জনগণের অনাস্থা বাড়ছে।

এর আগে, গত মাসে একটি সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছিল, ভ্যাকসিনের অনুমোদন পাওয়ার পর কোভিড-১৯ আক্রান্তদের মধ্য থেকে যারা স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে গ্রহণ করতে রাজি হবেন, তাদের শরীরে এটি প্রয়োগ করা হবে।

কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারি থামাতে বিশ্বজুড়ে শতাধিক সম্ভাব্য ভ্যাকসিন নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। এর মধ্যে অন্তত চারটি ভ্যাকসিন চূড়ান্ত ‘ফেজ থ্রি’ টেস্টিং বা মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চালাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এদিকে পুতিন বলেছেন, ভ্যাকসিন গ্রহণের পর তার কন্যার শরীরের তাপমাত্রা সামান্য বেড়ে গিয়েছিল, তবে সেই জ্বর সহসাই সেরে যায়।

‘কোভিড-১৯ আক্রান্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের শরীরে ভ্যাকসিনটির প্রয়োগ শুরু হবে সেপ্টেম্বরে। গণমানুষের কাছে আগামি জানুয়ারিতে সহজলভ্য হবে এটি,’ বলেন রাশিয়ার উপ প্রধানমন্ত্রী তাতিয়ানা গলিকোভা।

সূত্র: রয়টার্স